Breaking News

মানুষের মনোরঞ্জন করলেও মনের খবর কেউ রাখেনা, দুঃখ প্রকাশ করেন অভিনেতা সুমিত গাঙ্গুলী

টিভির সামনে বসে যে কোনো সিনেমা দেখে তো সকলেই পছন্দ করেন। কিন্তু টিভির ওপারে যারা যারা অভিনয় করছেন তাদের জীবনের কতটা আপনারা জানেন? জানার চেষ্টা করেন নাকি করেন না? লকডাউনে তাদের কেমন অবস্থা, কিভাবে তাদের সংসার চলছে, সেই নিয়ে কিন্তু কেউ তেমন উচ্চবাচ্য করেন না। কিন্তু এত বছর ধরে যারা দর্শকদের মনোরঞ্জন করে চলেছেন তাদের খবর রাখাটা কিন্তু আমাদের একটা দায়িত্ব। দীর্ঘ বেশ কয়েক বছর ধরে সোশ্যাল মিডিয়া এবং অন্যান্য বেশকিছু জায়গাতে বিনোদন জগতের বেশকিছু শিল্পীআমাদের মন জয় করে রেখেছেন। কিন্তু, অনেকটা আমাদের মতই তাদের অবস্থাও কিন্তু খুব একটা ভালো নয়।

আমরা যেখানে করোনাভাইরাস এর দ্বিতীয় ঢেউয়ে একেবারে কাহিল হয়ে পড়েছি, তারাও কিন্তু ঠিক একই রকম অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। তাদের হাতে একদম পয়সা নেই। অনেকেই তাদের মধ্যে নতুন নতুন পেশা বেছে নেওয়ার চেষ্টা করছেন। অনেকে আবার অবস্থা ভিক্ষাবৃত্তিকে নিজের পেশা হিসেবে গ্রহণ করছেন।কিছুদিন আগে আমরা দেখতে পেয়েছিলাম সিনেমা এবং সিরিয়াল জগতের প্রবীণ অভিনেতা শঙ্কর ঘোষাল লকডাউন এর কারণে বেকার বাড়িতে বসে থাকার কারণে অসহায় হয়ে খাবার জন্য শেষে ভিক্ষাবৃত্তির পথ অবলম্বন করতে বাধ্য হয়েছিলেন। সেই সময় তাকে চূড়ান্ত অপমানের হাত থেকে রক্ষা করেছিলেন সব্যসাচী এবং ঐন্দ্রিলা।

এছাড়াও আমরা আরও এক অভিনেতাকে দেখেছি যিনি লকডাউন এ কাজ হারিয়ে বাজারে মাছ বিক্রি করছেন। তিনি নিজেই এখন বলছেন, বিনোদন জগতের কাজ করে খুব একটা বেশি পয়সা নেই যতটা পয়সা রোজগার করা যাচ্ছে বাজারে মাছ বিক্রি করে। তাই তার অভিনয় জগতে ফেরার তেমন আর কোনো ইচ্ছে নেই। এই দু’চারটে নিদর্শন আমাদের চোখে প্রতিদিন পড়ছে। কিন্তু এনাদের ছাড়া ও কিন্তু বাংলা টেলিভিশন এবং সিনেমা জগতে আরো বেশ কিছু অভিনেতা রয়েছেন যারা দিনের পর দিন কাজ হারিয়ে বাড়িতে বসে রয়েছেন। এ রকমই একজন অভিনেতা হলেন সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়।

ফেসবুকে তিনি নিজের দুর্দশার কথা তুলে ধরলেন। তার পাশাপাশি, তিনি নিজের ছাড়াও বাকিদের বর্তমান অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেছেন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে।ফেসবুকে নিজের প্রোফাইলে সুমিত গঙ্গোপাধ্যায় লিখেছেন তিনি কীভাবে দুঃখ কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন সেই নিয়ে। তার বক্তব্য, অনেকেই মনে করেন সিনেমা জগতে যারা কাজ করেন তারা সব সময় হাসিমুখে সেজেগুজে ক্যামেরার সামনে বসে থাকেন, তাই তাদের জীবনে কোনো রকম দুঃখ কষ্ট নেই। এমনকি অনেকে মনে করেন তাদের জীবনে কোনো রকম দুঃখ-কষ্ট থাকতেও নেই। কিন্তু সেরকমটা নয়।

এটা ঠিক যে বহুদিন ধরে করোনা ভাইরাসের কারণে রাজ্যে বাংলা সিনেমার এবং সিরিয়ালের শুটিং সম্পূর্ণরূপে বন্ধ ছিল। এছাড়াও দোকান বাজার সবকিছু বন্ধ, কারখানা চলছে না, কোনরকম শিল্প তৈরি হচ্ছে না। কোনরকম ইন্ডাস্ট্রি থেকে, কিংবা কোন ব্র্যান্ড থেকে কোন প্রোডাক্ট নতুন লঞ্চ করা হচ্ছে না। এই কারণে শিল্পীদের হাতে ব্র্যান্ড প্রমোশনের জন্য কোন আবেদন আসছে না।সিরিয়াল এবং সিনেমার শুটিং শুরু হলেও অত্যন্ত কম সংখ্যক শিল্পীদের নিয়ে চলছে। যারা সেই সিরিয়ালের সিনেমায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ রোলে অভিনয় করছেন তাদের ছাড়া বাকিদের কিন্তু অভিনয় করার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। কোন প্রডিউসার এরকম ছোটখাটো রোলে অভিনয় করা অভিনেতাদের নিয়ে কাজ করতে চাইছে না।

সবার বাজেট একেবারে বিগড়ে গেছে এই লকডাউনে। লকডাউন এর সব থেকে বেশি মার পড়েছে সাধারণ দিন আনা দিন খাওয়া মানুষদের উপরে। তারই মধ্যে আবার করোনাভাইরাস এর তৃতীয় ঢেউ আসতে চলেছে বলে খবর। এই রকম পরিস্থিতিতে বিনোদন জগত থেকে শুরু করে অন্যান্য শিল্পমহল সমস্ত জায়গাতে কার্যত ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। সমস্ত কাজ ধীরে ধীরে চলছে। কবে আবার পুরনো গতিতে কাজ শুরু হবে সেই বিষয় নিয়ে এখনো পর্যন্ত কিছু বলতে পারছেনা কোন সংস্থা।

করোনাভাইরাস এর ঢেউ যেভাবে মানুষকে গ্রাস করেছে তা যে মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষের সহায় সম্বল টুকু কেড়ে নিয়েছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই কার্যত অভিমান এবং অভিযোগের সুরে সুমিত গঙ্গোপাধ্যায় বললেন, “শিল্পীরা সাধারণ মানুষের মুখে হাসি ফোটায় অভিনয়ের মাধ্যমে, কিন্তু শিল্পীদের দুঃখের সময় তাদের কথা কেউ ভাবেনা।” নিজের পোস্ট এর মাধ্যমে কার্যত সকলের সাহায্য চাইলেন এবং সকলকে কঠিন মুহূর্তে একসাথে পাশে থাকার অনুরোধ জানালেন বাংলা কমার্শিয়াল ছবিতে এককালে দাপিয়ে নেগেটিভ চরিত্রে অভিনয় করে আসা জনপ্রিয় অভিনেতা সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়।

Check Also

ঘরের মধ্যে নিজের বউয়ের সাথে লুকিয়ে প্রেম! শশুরের কাছে ধরা পড়তে গিয়ে অল্পের জন্য রক্ষা পেল সৌজন্য গুনগুন

আজ আমরা যা আলোচনা করব তিনি হচ্ছেন একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী তথা ব্লকবাস্টার ধারাবাহিকের নায়িকা। হ্যাঁ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *