Breaking News

ছেলে ঈশানকে বাড়িতে একা রেখে স্বামী যশের সঙ্গে পূজো দেখতে গেলেন অভিনেত্রী নুসরাত জাহান, রইলো ছবি

সমস্ত বিতর্ক কাটিয়ে উঠে এবার দুর্গা পুজোয় নুসরত জাহান এবং অভিনেতা যশ দাশগুপ্ত বেশ ভালো সময় কাটাচ্ছেন। পুজোর মন্ডপে মন্ডপে বিচারক হয়ে ঘুরে বেরিয়েছেন দুজনে। এমনকি যশের হাত ধরে একসাথে ঢাক বাজিয়েছেন। সেই রকম একটি ভিডিও নুসরতের ফ্যান পেজ থেকে পোস্ট করা হয়েছে।

পুজোর শুভ মুহূর্তে একেবারে বাঙালি সাজের দেখা গিয়েছে অভিনেত্রীকে। নিখিল জৈনের সঙ্গে মনোমালিন্যের খবর প্রকাশ্যে আসার কয়েক দিনের মধ্যেই টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা যশ দাশগুপ্তের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বাড়তে শুরু করে নুসরত জাহানের।

দুজনের সম্পর্ক নিয়ে শুরু হয় গুঞ্জন। একসাথে বেড়াতে যাওয়া থেকে শুরু করে রেস্টুরেন্টের সময় কাটানো সবেতেই যেতেন দুজনে। দুজনের ঘনিষ্ঠতার গুঞ্জন আরো জোরালো হয় যখন নুসরত অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। জানা গিয়েছিল, প্রেগনেন্সির পুরো সময়টা নুসরতের পাশে ছিলেন যশ দাশগুপ্ত।

ঈশানকে জন্ম দেওয়ার সময় নুসরতের পাশে ছিলেন যশ। হাসপাতাল থেকে যেদিন সদ্যজাত সন্তান এবং মাকে ছুটি দেওয়া হয় সেদিনও ঈশানকে কোলে করে নিয়ে হাসপাতাল থেকে বের হন যশ। নিজে গাড়ি চালিয়ে যশ নুসরত ও ঈশানকে বাড়িতে নিয়ে যান।

তার কিছুদিনের মধ্যেই প্রকাশ্যে আসে ঈশানের বার্থ সার্টিফিকেট। বার্থ সার্টিফিকেটে ছেলের বাবা হিসেবে যশের নামই নথিভূক্ত করিয়েছেন নুসরত। এবার পুজোর সময় আর কোন রাখঢাক না করে যশ নুসরত একে অপরের হাত ধরে বেরোলেন পুজো দেখতে।

খোশমেজাজে যশ এবং নুসরত মণ্ডপে মণ্ডপে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। একসাথে দুজনে ঢাক বাজিয়েছেন। নুসরতের ফ্যান ক্লাবের পক্ষ থেকে সেই ভিডিও আপলোড করা হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে।

যশরতের এই ভিডিও দেখে অনেকেরই মনে পড়ছে ২০১৯ সালের পুজোর কথা। “সহবাস সঙ্গী” নিখিলের সাথে এভাবেই হাত ধরে পুজোর মন্ডপে ঘুরেছিলেন নুসরত। নিখিলের সঙ্গে ঢাকও বাজিয়েছিলেন তিনি।


মাত্র বছর দুয়েকের মধ্যে সম্পূর্ণ পরিস্থিতি পাল্টে গিয়েছে। রবিবার যশের জন্মদিন ধুমধাম করে পালন করেন নুসরত। এবার প্রশ্ন উঠছে, তবে কি গোপনে বিয়ে সেরে নিলেন দুজনে।

Check Also

প্রথম বার ছেলে ইশানকে সঙ্গে নিয়ে থ্যাইসল্যান্ডে ঘুরতে গেলেন অভিনেত্রী নুসরাত জাহান, রইলো ভাইরাল ছবি

গত ২৬ অগাস্ট মা হয়েছিলেন অভিনেত্রী সাংসদ নুসরত জাহান। এক ফুটফুটে পুত্র সন্তানের জন্ম দেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *